৯৬ ঘণ্টার পর্যবেক্ষণ শেষ, চিকিৎসায় সাড়া দিচ্ছেন প্রণব মুখোপাধ্যায়

মস্তিকের রক্তক্ষরণের অস্ত্রোপচারের পর চিকিৎসকদের ৯৬ ঘণ্টার পর্যবেক্ষণ শেষ হলেও তার শারীরিক অবস্থার কোনও পরিবর্তন হয়নি। ভেন্টিলেটরেই আছেন ভারতরত্ন জয়ী সাবেক এই রাষ্ট্রপতি। তবে তার শরীরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ প্যারামিটারের অবস্থা বর্তমানে স্থিতিশীল রয়েছে। শুক্রবার নয়াদিল্লিতে সেনাবাহিনীর রিসার্চ অ্যান্ড রেফারাল হাসপাতালের এক বুলেটিনে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

গত ১০ আগস্ট পড়ে গিয়ে মস্তিষ্কে গুরুতর আঘাত পান প্রণব মুখোপাধ্যায়। পরে হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসকরা তার মস্তিষ্কে অস্ত্রোপচারের সিদ্ধান নেন। অস্ত্রোপচারের আগে পরীক্ষা করতে গিয়ে তার শরীরে করোনাভাইরাস ধরা পড়ে। তখন থেকেই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন সাবেক এই রাষ্ট্রপতির শারীরিক অবস্থার কোনো উন্নতি হয়নি।

প্রণব মুখোপাধ্যায়ের ছেলে অভিজিৎ মুখোপাধ্যায় এক টুইট বার্তায় বলেছেন, ‘৯৬ ঘণ্টার পর্যবেক্ষণ আজ শেষ হয়েছে। আমার বাবার শরীরের গুরুত্বপূর্ণ প্যারামিটার স্থিতিশীল রয়েছে এবং তিনি চিকিৎসা এবং বাইরের উদ্দীপকে সাড়া দিচ্ছেন। আমারা বাবা বলতেন, ভারতের জনগণকে যা দিতে পেরেছি সেই তুলনায় ফেরত পেয়েছি বেশি। দয়া করে, তার জন্য প্রার্থনা করুন।’

দেশটির বর্তমান বিরোধীদল কংগ্রেসের প্রথম সারির নেতা ছিলেন প্রণব মুখোপাধ্যায়। দীর্ঘদিনের রাজনৈতিক ক্যারিয়ারের সর্বোচ্চ প্রাপ্তি ঘটে ২০১২ সালে; ওই বছর ভারতের রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হন তিনি। ২০১২ থেকে ২০১৭ পর্যন্ত রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব পালন করেন তিনি।

প্রায় পাঁচ দশকের বেশি সময় ধরে কংগ্রেসের রাজনীতি করেছেন প্রণব মুখোপাধ্যায়। ২০১৭ সালে ভারতের রাষ্ট্রপতির পদ থেকে বিদায় নেন তিনি। ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী, রাজীব গান্ধী, পিভি নরসিমা রাও এবং মনমোহন সিংয়ের আমলে গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পালন করেন তিনি।

ক্ষমতা থেকে বিদায় নেয়ার পর ২০১৯ সালে দেশটির সর্বোচ্চ বেসামরিক পুরস্কার ভারতরত্ন লাভ করেন তিনি।

ভারতরত্ন পাওয়ায় দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি সেই সময় এক টুইটে প্রণবের প্রশংসা করে বলেন, ‘আমাদের সময়ের একজন অসাধারণ রাষ্ট্রীয় ব্যক্তি প্রণব মুখোপাধ্যায়। কয়েক দশক ধরে মানুষের জন্য নিস্বার্থ এবং ক্লান্তিহীনভাবে কাজ করেছেন তিনি। দেশের উন্নয়নে অসাধারণ কাজের ছাপ রেখেছেন। তার জ্ঞান এবং বুদ্ধি অনন্য ধারার। তিনি ভারতরত্ন পাওয়ায় আমি আনন্দিত।’

Share this post

PinIt

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top